বিল গেটস এর সর্ম্পকে কিছু কথা

Written by: alamin


About : This author may not interusted to share anything with others

Adv header
8 months ago | Date : January 22, 2018 | Category : Uncategorized | Comment : Leave a reply |

জন্ম  স্কুল জীবনঃ যুক্তরাষ্ট্র শহরের সিয়াটল শহর। এই শহরেই ২৮ অক্টোবর ১৯৫৫ সালে জন্মগ্রহন করেন বিল। পিতা উইলিয়াম হেনরি। পেশায় নামকরা উকিল। মা চাকরি করতেন United way নামক এক প্রতিষ্ঠানে। হেনরি পরিবারের এক মাত্র ছেলে বিল। তাদের আরো ২ টি মেয়ে ছিল। বিলের বড় বোনের নাম kristianne.এবং ছোটো বোনের নাম Libby.
বাবা মায়ের ইচ্ছা ছিল বিল গেটস বড় হয়ে বাপের মতই উকিল হোক। নাম কামাক। ১৩ বছর বয়সে বাসার কাছের একটা স্কুল Lakeside school এ তাকে ভর্তি করিয়ে দেয়া হয়। মোটামুটি এই স্কুল থেকেই তাঁর কম্পিউটারের প্রতি আগ্রহ জন্মে। তাঁর মাথায় ঘুরপাক খায় কিভাবে কম্পিঊটার এত সহজে প্রোগ্রামগুলো সহজে ধরতে পারে? তাঁর কম্পিউটারের উপর প্রোগ্রামিং এই স্কুলেই ঘটে। তিনি প্রথম প্রোগ্রাম তৈরি করেছিলেন এই স্কুলেই। যার নাম ছিল ‘Tic-tac-toe’ এই প্রোগ্রামটি কম্পিউটারের বিরুদ্ধে গেইম খেলার জন্য ব্যাবহার করত।

আকাশ দেখলেই বোঝা যায় দিন কেমন যাবে। বিলকে দেখে তাও বোঝা যায় নাই। সে যে এমন বিশাল ব্যাক্তি হবে।
কে জানত?

বিল গেটস স্বাক্ষর:

বিশ্ববিদ্যালয় এবং কর্মজীবনঃ ১৯৭৩ সালে Lakeside school থেকে তাঁর গ্র্যাজুয়েশন শেষ হয়। সেই সালেই তিনি হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। এখানেই তাঁর সাথে পরিচয় ঘটে Steve ballmer এর সাথে। তিনিই হলেন বর্তমান মাইক্রোসফটের সহকারী পরিচালক। হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ২য় বছরে কিছু পোগ্রামিং সমস্যার একটা সিরিজ সমাধান করে ফেলেন। ৩০ বছরের মদ্ধ্যে এটি সবচেয়ে দ্রুততম সিরিজ সমাধান ছিল।

চিত্রঃ সাদা কালো এবং রঙিন বিল। (হাভার্ড ইউনিভার্সিটি)
যদিও বিলের বাবা মায়ের স্বপ্ন ছিল ছেলে উকিল হবে। তবে তাঁর বাবা মায়ের স্বপ্ন পূরনে তেমন আগ্রহী হতে দেখা গেল না। অবশ্য তেমন কোন ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ছিল না যে সামনে কিভাবে নিজেকে যোগ্য করবেন। তবে তাঁর মন ঐ কম্পিউটারের পিছনেই পড়ে থাকত। শেষে তিনি স্কুলের সেই বন্ধু পল এল্যান আসতে বললেন হাভার্ডে। মূলত বন্ধুর ডাকেই সাড়া দিয়ে হাভার্ডে যোগ দিলেন পল।
এর মাঝে MITS (Micro instrumentation and telemetry system ) তাঁদের MITS Altair 8800 বের করে। এটি একটি মাইক্রোকম্পিউটার বিশেষ। MITS Altair 8800 বের হওয়ার পর গেটস MITS এর সাথে যোগাযোগ করলেন। তিনি তাঁদের জানান যে তাঁদের Altair 8800 তে তিনি নতুন কিছু প্রোগ্রাম যুক্ত করতে চান। MITS এর প্রেসিডেন্ট বেশ আগ্রহ দেখালেন। তিনি বিলের কাছে Demo চেয়ে বসলেন। বিল BASIC নামে একটি demo তৈরি করেন। MITS তাঁদের কম্পিউটারে Demo ব্যাবহার করে বিস্ময়কর ফলাফল পায়। পরে এই প্রোগ্রাম নিয়ে পরবর্তীতে MITS তাঁদের নতুন এডিশন ছাড়ে।
এর পরে পল MITS এ চলে যান। পলকে সাহায্য করার জন্য হাভার্ড থেকে ছুটি নেন তিনি।
মাইক্রোসফটের সূচনাঃ তিনি পলের সাথে পার্টনারশীপে একটি অফিস খুলেন। নিউ মেক্সিকোর ‘’Albuquerque’ নামে এক এলাকায় প্রথম অফিস খুলেন। ১৯৭৬ সালের ২৬ নভেম্বরে মেক্সিকোর বানিজ্য সচিবের অনুমতিক্রমে MITS এর আওতায় একটি প্রতিষ্ঠান খুলেন। এটই ছিল Microsoft এর প্রথম অফিস।
পরে ১৯৭৭ সালে MITS থেকে Microsoft সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে পড়ে। প্রতিষ্ঠান সফটওয়ার ডেভেলপমেন্ট এর উপর কাজ করতে থাকে। বিল ভাবলেন তাঁর প্রতিষ্ঠাঙ্কে তাঁর নিজ দেশে নিয়ে যেতে হবে। তিনি নিউ মেক্সিকো থেকে Microsoft কে ওয়াশিংটন শহরের Bellevue শহরে নিয়ে আসেন। এখানে এসে কোম্পানীর জন্য লোন খুজতে শুরু করলেন। নতুন কোম্পানী বলে কেউই লোন দিতে রাজি নয়। অনেক চেষ্টা করে কাছের এক ব্যাঙ্ক থেকে লোন পান তিনি।

১৯৮০ সালে IBM একক ব্যবহারের জন্য একটি কম্পিউটার তৈরির সিধান্ত নেয়। Acron ছদ্মনামে একটি গোপন প্রজেক্ট শুরু করে। এই কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম তৈরির জন্য Microsoft কে নিয়োগ দেয়া হয়। এরপরে Pc-dos নামক একটি অপারেটিং সিস্টেম IBM কে দেয়া হয়। IBM এটি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়। এখানে একটা বিষয় হল যে PC-dos অপারেটিং সিস্টেমটি কিন্তু সম্পূর্ণভাবে Microsoft দ্বারা তৈরি না। বিল গেইটস ওয়াশিংটন শহরের সিয়াটল শহরের ছোট্ট একটি হার্ডওয়ার দোকান থেকে QD-DOS(Quick and dirty dos) নামে একটি অপারেটিং সিস্টেম কিনে নেন। এটিকেই IBM এর মাইক্রোপ্রোসেসর অনুযায়ী পরিবর্তন করে Pc-dos করা হয়।

১৯৮৫ সালে বিল গেটসের স্বপ্ন পূরনের বছর। তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন নিজেদের তৈরি একটা অপারেটিং সিস্টেম তিনি বাজারে ছাড়বেন। ২০ নভেম্বর Microsoft প্রকাশ করলো তাঁদের প্রথম অপারেটিং সিস্টেম Windows 1.0.


১৯৯২ সালের দিকে তিনি IBM এর আওতা থেকে মুক্ত হলেন। অর্থাৎ তিনি সম্পুর্ন আলাদাভাবে Microsoft Windows এর এডিশনগুলো ছাড়তে লাগলেন। Microsoft এর বাজার সমৃদ্ধ্য হতে লাগল। আস্তে আস্তে Microsoft বাজারে বেশ ভাল ভাবে আসন নিইয়ে নিল।

একের পর এক Microsoft এর নতুন নতুন আবিষ্কার বাজারে আসল। আর ব্যাপকভাবে সাড়া পেল Microsoft.
-১৯৯০তে Windows 3.0
-১৯৯৫তে Windows 95
-১৯৯৮ তে Windows 98
-১৯৯৯ তে Windows 2000, Office 2000, ও Windows ME
-২০০০ তে Microsoft C# ভাষা ও Microsft.net এর উদ্ভব।
– ২০০১ তে Windows Xp প্রচলন
-২০০৫ তে Windows Xp Media Centre 2005 এবং Xbox 360 প্রচলন।
-২০০৬ তে Windows Vista এর প্রচলন
-২০০৭ তে Microsoft word 2007 এর প্রচলন।
-২০০৮ তে Microsoft Windows server 2008 এর সূচনা
-২০০৯ তে Windows 7 এর সূচনা সমাপ্তী করে Windows 8.1 কে অসমাপ্তী রেখে শুধু Windows 10 কে নতুন নতুন ভার্সন করে যাচ্ছে Microsoft,

বর্তমানে প্রায় 90% ব্যাংক গুলো তার ডেভেলপ করা সফটওয়্যার ব্যবহার করে আসছে,
এমন কি কিপ্ট্রকারেন্সি এর মাদার কয়েন বিটকয়েন ও তার টেকনোলজি ব্লকচেইন ব্যবহার করে বিটকয়েন এর এমন কোনো ট্রানজাকশন হয়নি জেটা ওপেন র্সোস ব্লকচেইন এর লেজারে নাই, প্রতিটা লেনদেন এরন জন্য ব্লকচেইন টেকনোলজি ব্যাবহার হয় ব্লকচেইন টেকনোলজি প্রতি লেনদেন খুবই সুরক্ষিত,বিটকয়েন নিয়ে কিছু জানার অথবা মন্তব্য থাকলে নিচের লিঙ্ক গুলো দেখতে পারেন

বিটকয়েন কি, কেন প্রয়োজন পর্ব-১

বিটকয়েন কি, কেন প্রয়োজন পর্ব-২

বিটকয়েন কি, কেন প্রয়োজন পর্ব- ৩

সাফল্যসাফল্য এবন সাফল্যঃ আর বিল গেটসকে পিছনে তাকাতে হয় নি। বরং সবাই অবাক হয়ে তাকে দেখেছে। Microsoft এর কাজ দেখেছে। কারন ঘরে ঘরে কম্পিউটার চালনা মূলত তাঁর অপারেটিং সিস্টেমের কারনেই হয়েছে। কারন Windows ছিল চিত্রভিত্যিক অপারেটিং সিস্টেম। আগে যেমন কোড লিখে লিখে কম্পিঊটার চালাতে হত সেটি আর থাকছে না। এর ফলে কম্পিউটার চালানো সহজতর হয়ে গেল। অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমের চেয়ে Windows চালানো সহজ। যার কারনেই Microsoft এর ব্যাপক সাফল্য পায়।
আর সাফল্যের সাথে যশ, খ্যাতি, ক্ষমতা এবং অর্থ বাড়ে। ১৯৮৭ সালে Fobers পত্রিকায় ৪০০ বিলিওয়ানের মধ্যে তাঁর নাম চলে আসে। বয়স তখন মাত্র ৩২ বছর। তখন তাকে স্বীকৃতি দেয়া হয় নিজের আত্ম প্রচেষ্টায় হয়ে ওঠা সবচেয়ে কম বয়স্ক বিলিওনার। তখন সম্পদের পরিমান ছিল ১.২৫ বিলিওন। কয়েকদিনের মধ্যেই আরো যোগ হল ৯০০ বিলিওন।
১৯৯৩ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত তিনি ছিলেন Fobers পত্রিকা জরীপে বিশ্বের ১ নাম্বার ধনী ব্যাক্তি। ছিলেন টানা ১৬ বছর।
Times ম্যাগাজিন তাকে “One of the 100 people who most influenced the 20th century” এর তালিকায় ১ম স্থানে থাকেন। ১ম স্থান ধরে রাখেন ২০০৪, ২০০৫ ও ২০০৬ সালেও।

চিত্রঃ টাইমস ম্যাগাজিনে বিল
২০০৫ সালে টাইমস বিল গেটসের স্ত্রী ‘মেলিন্ডা’ কে “person of the year “ এর পুরষ্কার হিসেবে ভূষিত করেন।
২০০৫ সালেই ইংল্যান্ডের রানী ২য় এলিজাবেথ তাকে “Honorary Knight Commander of the Order of the British Empire (KBE)” পদকে ভূষিত করেন।

চিত্রঃ পুরষ্কার নিচ্ছেন রানীর কাছ থেকে।

এমনই অনেক পুরষ্কারেই তিনি ভূষিত।
২০০৮ সালে তিনি Microsoft থেকে অবসর নেন। অবসর নেয়ার পর তিনি তাঁর দাতব্য সংস্থ্যাগুলোর প্রতি মনোযোগ দেন। দরিদ্র দেশ গুলোতে এবং নানা ধরনের মহামারীতে তিনি অর্থ অনুদান করতে থাকেন। প্রযুক্তি যেন সবখানে পৌছতে পারে সেদিকে তিনি নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন এবং নিচ্ছেন।

ব্যাক্তিগত জীবনঃ ব্যাক্তিগত জীবন বলতে স্ত্রী মেলিন্ডা ও তিন সন্তান। ২ মেয়ে Jennifer Katharine ও Phoebe Adele এবং একমাত্র ছেলে Rory John।. এত অর্থ সম্পদের মালিক বিল গেটসের জীবন খুব সাধাসাধি ভাবে কাটাতে ভালবাসেন। ওয়াশিংটনের মেডিনার লেকে পর্বত মুখি ছিমছাম বাড়ি তাঁর। এই বাড়ির নাম ‘The Gates Home’

৬৬০০০ বর্গফুটের এই বাড়িতে ৬০ ফুট গভীর সুইমিংপুল। সুইমিনপুলের সাথে ওয়াটার মিউজিক সিস্টেম। আরো আছে ২৫০০ ফুটের ব্যামাগার এবং ১০০০ ফুটের ডাইনিং স্পেস। বিশাল ব্যাপার!

এত সফল ব্যাক্তিত্য তিনি। এছাড়া তিনি একজন লেখকও বটে। অনেক পত্রিকায় তিনি গবেষনামূলক লেখা লিখেছেন। ১৯৯৯ সালে মাইক্রোসফটের Nathan Myhrvold এবং সাংবাদিক Peter Rinearson এর সাথে যৌথভাবে লেখা বই The road ahed. ১৯৯৯ সালে প্রযুক্তিগত বই Business @ the speed of thought প্রকাশিত হয়।
তাকে নিয়ে বেশ কিছু ডকুমেন্টারি ফিল্ম তৈরি হয়ে ছে। উল্লেখযোগ্য হল “Waiting for superman” এবং BBC এর “The virtual Revolution”

সাফল্য বাক্তিত্যদের নিয়ে সংক্ষেপে লেখা সহজ কথা নয়। কিন্তু বিল গেটস! অল্প এই ছোট্ট ভাবে তাঁর সাফল্যমন্ডিত জীবনের ব্যাখ্যা অতি অসম্ভব সাফল্য যেখানে তাঁর পায়ে পায়ে।
তবুও খুব অল্প এবং ছোটভাবে তাঁর সাফল্যগাথা জীবনের বর্ননা করলাম। তাঁর প্রযুক্তিতে যেই অবদান খুব কম মানুষের দ্বারা সম্ভব।

সুত্র :উইকিপিডিয়া

tags: ,,,

Leave a Reply



Parse error: syntax error, unexpected ')' in /home/eiconbd/public_html/blog/wp-content/themes/techtunes/footer.php on line 10